12 তম পরে প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য নির্বাচন প্রক্রিয়া কি?

এই নিবন্ধটি উচ্চ বিদ্যালয় শেষ করার পর ভারতে প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য যোগ্যতার মানদণ্ড এবং নির্বাচন প্রক্রিয়ার একটি ওভারভিউ প্রদান করে। প্রার্থীদের বয়স, লিঙ্গ, বৈবাহিক অবস্থা এবং শিক্ষাগত যোগ্যতার উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট যোগ্যতার প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে হবে।

একটি লিখিত পরীক্ষা, শারীরিক ফিটনেস পরীক্ষা, মেডিকেল পরীক্ষা, গ্রুপ আলোচনা, ব্যক্তিগত সাক্ষাৎকার, এবং সার্ভিসেস সিলেকশন বোর্ড (SSB) মূল্যায়ন সবই নির্বাচন প্রক্রিয়ার অংশ। নিবন্ধটি নির্বাচন প্রক্রিয়ার প্রতিটি পর্যায়ের তাত্পর্যের উপর জোর দেয় এবং প্রতিরক্ষা চাকরির পরীক্ষার জন্য কীভাবে প্রস্তুতি নিতে হয় সে সম্পর্কে পরামর্শ দেয়।

যেহেতু ভারতীয় সেনাবাহিনীতে প্রবেশ-স্তরের পদগুলির জন্য গ্রহণযোগ্যতার হার অত্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক, প্রার্থীদের অবশ্যই সমস্ত যোগ্যতার মানদণ্ড পূরণ করতে হবে এবং নির্বাচন প্রক্রিয়ার জন্য পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে প্রস্তুত হতে হবে।

Armed forces marching with gun Calcutta, India - January 24, 2016: Indian army practice their parade during republic day. The ceremony is done by Indian army every year to salute national flag in 26th January. indian army stock pictures, royalty-free photos & images

12 তম এর পরে প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য যোগ্যতার মানদণ্ড

12 তম গ্রেড শেষ করার পরে, প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য আবেদন করার জন্য প্রার্থীদের অবশ্যই নির্দিষ্ট যোগ্যতার মানদণ্ড পূরণ করতে হবে। যোগ্যতার প্রয়োজনীয়তাগুলি সশস্ত্র বাহিনীর ভূমিকা এবং শাখার উপর নির্ভর করে যার জন্য একজন প্রার্থী আবেদন করছেন। যাইহোক, কিছু সাধারণ যোগ্যতার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে যা বেশিরভাগ প্রতিরক্ষা চাকরিতে প্রযোজ্য।

প্রথম এবং সর্বাগ্রে, প্রার্থীকে অবশ্যই একজন ভারতীয় নাগরিক হতে হবে। দ্বিতীয়ত, তাদের অবশ্যই কোনো স্বীকৃত বোর্ড বা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দ্বাদশ শ্রেণী বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। তৃতীয়ত, প্রার্থী যে পদের জন্য আবেদন করছেন তার জন্য নির্দিষ্ট বয়সসীমার মধ্যে হতে হবে। প্রবেশ-স্তরের পদগুলির জন্য, বয়সের সীমা সাধারণত 16.5 থেকে 19 বছর পর্যন্ত হয়ে থাকে।

এই সাধারণ মানদণ্ড ছাড়াও লিঙ্গ, বৈবাহিক অবস্থা, শারীরিক মান এবং শিক্ষাগত যোগ্যতার মতো কারণগুলির উপর ভিত্তি করে কিছু নির্দিষ্ট যোগ্যতার মানদণ্ড রয়েছে। কিছু পদ, উদাহরণস্বরূপ, শুধুমাত্র পুরুষ প্রার্থীদের জন্য উন্মুক্ত হতে পারে, অন্যদের জন্য প্রার্থীদের অবিবাহিত হতে হবে।

একটি লক্ষণীয় পরিসংখ্যান হল যে প্রতিরক্ষা কাজের জন্য নির্বাচন প্রক্রিয়া অত্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক। ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রক জানিয়েছে যে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে প্রবেশ-স্তরের পদের জন্য আবেদনকারী প্রার্থীদের গ্রহণযোগ্যতার হার প্রায় 0.5%।

এর মানে হল প্রতি 200 জন আবেদনকারীর জন্য শুধুমাত্র একজনকে বেছে নেওয়া হয়। ফলস্বরূপ, প্রার্থীদের জন্য এটি নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ যে তারা সমস্ত যোগ্যতার মানদণ্ড পূরণ করে এবং নির্বাচন প্রক্রিয়ার জন্য পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে প্রস্তুত করে।

লিখিত পরীক্ষা এবং এর প্যাটার্ন

লিখিত পরীক্ষা 12 তম গ্রেডের পরে সামরিক বাহিনীতে চাকরির জন্য নির্বাচন প্রক্রিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটি গণিত, ইংরেজি, সাধারণ জ্ঞান এবং যুক্তি সহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রার্থীর জ্ঞান এবং যোগ্যতা মূল্যায়ন করতে ব্যবহৃত হয়।

লিখিত পরীক্ষার ফরম্যাট চাকরির উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। উদাহরণস্বরূপ, ভারতীয় সেনাবাহিনীর টেকনিক্যাল এন্ট্রি স্কিম (TES) এর প্যাটার্নে পদার্থবিদ্যা, রসায়ন এবং গণিতের প্রশ্ন রয়েছে, যেখানে ভারতীয় বিমান বাহিনীর গ্রুপ X এবং গ্রুপ Y ট্রেডের প্যাটার্নে ইংরেজি, গণিত এবং যুক্তির প্রশ্ন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

READ  প্রতিরক্ষা খাতে কাজ করার সুবিধা কী?

সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষা অনুসারে, প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য লিখিত পরীক্ষায় গড় পাসের হার প্রায় 20%। অর্থাৎ লিখিত পরীক্ষায় প্রতি 100 জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে মাত্র 20 জন উত্তীর্ণ হয়।

শারীরিক সুস্থতা এবং চিকিৎসা পরীক্ষা

12 তম গ্রেডের পরে সামরিক চাকরির জন্য বাছাই প্রক্রিয়ার গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হল শারীরিক সুস্থতা এবং চিকিৎসা পরীক্ষা। তাদের দায়িত্ব কার্যকরভাবে পালন করার জন্য ব্যক্তিদের অবশ্যই শারীরিকভাবে সুস্থ ও সুস্থ থাকতে হবে।

প্রার্থীদের নির্বাচন প্রক্রিয়া চলাকালীন তাদের শক্তি, সহনশীলতা এবং তত্পরতা নির্ধারণের জন্য শারীরিক ফিটনেস পরীক্ষার একটি সিরিজ পাস করতে হবে। দৌড়ানো, লাফানো, পুশ-আপ, সিট-আপ এবং প্রার্থীর শারীরিক ফিটনেস স্তরের মূল্যায়ন করার জন্য অন্যান্য ব্যায়াম এই পরীক্ষাগুলিতে অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।

প্রার্থীদের শারীরিক ফিটনেস পরীক্ষার পাশাপাশি একটি মেডিকেল পরীক্ষাও পাস করতে হবে। এই পরীক্ষাটি প্রার্থীর সামগ্রিক স্বাস্থ্য এবং সুস্থতার মূল্যায়ন করে, যার মধ্যে দৃষ্টি, শ্রবণশক্তি এবং যেকোন পূর্বে বিদ্যমান চিকিৎসা অবস্থা রয়েছে।

যে প্রার্থীরা শারীরিক ফিটনেস পরীক্ষা এবং মেডিকেল পরীক্ষা উভয়ই পাস করেন তারা দায়িত্বের জন্য উপযুক্ত বলে বিবেচিত হয় এবং নির্বাচন প্রক্রিয়ার পরবর্তী পর্যায়ে অগ্রসর হতে পারে। যে প্রার্থীরা প্রয়োজনীয় শারীরিক ফিটনেস বা চিকিৎসা মান পূরণ করেন না তাদের পদের জন্য আরও বিবেচনা থেকে অযোগ্য ঘোষণা করা হতে পারে।

গ্রুপ আলোচনা এবং ব্যক্তিগত সাক্ষাৎকার

গ্রুপ আলোচনা পর্যায়ে, আলোচনা করার জন্য প্রার্থীদের একটি গ্রুপকে একটি বিষয় বরাদ্দ করা হয়। অন্যদের দৃষ্টিকোণকে সম্মান করার সাথে সাথে তারা এই বিষয়ে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি এবং মতামত উপস্থাপন করবে বলে আশা করা হয়। এই পর্যায়ের লক্ষ্য হল প্রার্থীদের যোগাযোগ দক্ষতা, টিমওয়ার্ক করার ক্ষমতা, নেতৃত্বের গুণাবলী এবং সমস্যা সমাধানের ক্ষমতা মূল্যায়ন করা।

বিশেষজ্ঞদের একটি প্যানেল ব্যক্তিগত সাক্ষাত্কারের পর্যায়ে প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার নেয়। এই পর্যায়ের লক্ষ্য হল প্রার্থীদের ব্যক্তিত্ব, আত্মবিশ্বাস এবং বিষয় জ্ঞানের মূল্যায়ন করা। প্রার্থীরা প্যানেলের প্রশ্নের সততা ও আত্মবিশ্বাসের সাথে উত্তর দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

12 তম গ্রেডের পরে প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য নিয়োগ প্রক্রিয়ার উভয় স্তরই গুরুত্বপূর্ণ। উভয় পর্যায়ে ভাল পারফর্ম করা প্রার্থীদের নিয়োগের একটি ভাল সুযোগ রয়েছে। প্রার্থীদের তাদের সাফল্যের সম্ভাবনা বাড়ানোর জন্য এই ধাপগুলির জন্য পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে প্রস্তুত করতে হবে।

নির্বাচন প্রক্রিয়ায় SSB এর গুরুত্ব

এসএসবি (সার্ভিসেস সিলেকশন বোর্ড) 12 তম গ্রেড শেষ করার পরে প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য নির্বাচন প্রক্রিয়ায় একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীতে অফিসার পদের জন্য প্রার্থীদের বাছাই করা SSB-এর দায়িত্ব।

SSB শারীরিক সুস্থতা, বুদ্ধিমত্তা এবং ব্যক্তিত্বের বৈশিষ্ট্য সহ বিভিন্ন মানদণ্ডের ভিত্তিতে প্রার্থীদের মূল্যায়ন করে। স্ক্রীনিং, মনস্তাত্ত্বিক পরীক্ষা, গোষ্ঠী আলোচনা, এবং ব্যক্তিগত সাক্ষাৎকার সবই কঠোর প্রক্রিয়ার অংশ।

SSB এর তাৎপর্য ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীতে অফিসার পদের জন্য সবচেয়ে যোগ্য প্রার্থীদের সনাক্ত করার ক্ষমতার মধ্যে নিহিত। এসএসবি প্রক্রিয়া একজন প্রার্থীর নেতৃত্ব দেওয়ার, দ্রুত এবং কার্যকর সিদ্ধান্ত নেওয়ার এবং চাপের মধ্যে ভালভাবে কাজ করার ক্ষমতাকে মূল্যায়ন করে।

READ  12 তম পরে প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য প্রশিক্ষণের সময়কাল কত?

ফলস্বরূপ, প্রার্থীদের SSB প্রক্রিয়ার জন্য পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে প্রস্তুতি নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। তাদের অবশ্যই শারীরিক সুস্থতা, সাধারণ জ্ঞান এবং যোগাযোগের ক্ষমতাকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। তাদের নেতৃত্ব, সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং দলগত দক্ষতার উন্নতিতেও কাজ করা উচিত।

12 তম পরে প্রতিরক্ষা চাকরি পরীক্ষা ক্র্যাক করার জন্য টিপস

12 তম এর পরে প্রতিরক্ষা চাকরির পরীক্ষায় সফল হতে, আপনাকে অবশ্যই কিছু নির্দেশিকা অনুসরণ করতে হবে। শুরু করতে, আপনাকে অবশ্যই 12 তম গ্রেডের পরে প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য নির্বাচন প্রক্রিয়া বুঝতে হবে। একটি লিখিত পরীক্ষা, শারীরিক সুস্থতা পরীক্ষা, চিকিৎসা পরীক্ষা, এবং ব্যক্তিগত সাক্ষাৎকার সাধারণত নির্বাচন প্রক্রিয়ার অংশ।

লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি শুরু করতে, সিলেবাস এবং বিগত বছরের প্রশ্নপত্র পর্যালোচনা করুন। নিয়মিত অনুশীলন করা এবং আপনার সময় ব্যবস্থাপনা দক্ষতা উন্নত করার জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ। আপনার সাধারণ জ্ঞান এবং ইংরেজি দক্ষতার উপরও ব্রাশ করা উচিত।

শারীরিক ফিটনেস পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য আপনার স্ট্যামিনা এবং শক্তি বাড়াতে কাজ করা উচিত। আপনি একটি নিয়মিত ব্যায়ামের রুটিনে জড়িত হয়ে এটি সম্পন্ন করতে পারেন যার মধ্যে রয়েছে দৌড়ানো, পুশ-আপ, সিট-আপ এবং অন্যান্য প্রাসঙ্গিক ব্যায়াম।

মেডিকেল পরীক্ষাও নির্বাচন প্রক্রিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ, তাই নিশ্চিত করুন যে আপনি প্রয়োজনীয় চিকিৎসা মান পূরণ করছেন। আপনার এমন কোনো চিকিৎসা শর্ত আছে যা আপনাকে বেছে নেওয়া থেকে বাধা দিতে পারে তাও দেখতে হবে।

পরিশেষে, চাকরির ভূমিকা এবং প্রতিষ্ঠান নিয়ে গবেষণা করে ব্যক্তিগত সাক্ষাত্কারের জন্য আপনাকে পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে প্রস্তুত করা উচিত। আপনার উপযুক্ত পোশাক পরা উচিত এবং আত্মবিশ্বাসের সাথে প্রশ্নের উত্তর দেওয়া উচিত।

নির্বাচিত প্রার্থীদের জন্য প্রশিক্ষণ এবং প্রবেশকাল

12 তম গ্রেড শেষ করার পরে প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য বাছাই প্রক্রিয়ার বিভিন্ন পর্যায়ে উত্তীর্ণ হওয়ার পরে, প্রার্থীদের প্রশিক্ষণ এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য বেছে নেওয়া যেতে পারে। এই সময়কাল তাদের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য হিসাবে তাদের দায়িত্ব পালনের জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা এবং জ্ঞান বিকাশে সহায়তা করার উদ্দেশ্যে।

নির্বাচিত প্রার্থীরা প্রশিক্ষণ এবং প্রবেশনকালীন সময়ে প্রতিরক্ষা কার্যক্রমের বিভিন্ন দিকগুলিতে নিবিড় প্রশিক্ষণ এবং বাস্তব অভিজ্ঞতা পাবেন। এর মধ্যে শারীরিক ফিটনেস, অস্ত্র প্রশিক্ষণ এবং ড্রিলস, সেইসাথে সামরিক আইন, যোগাযোগ এবং কৌশলের ক্লাসরুমের নির্দেশনা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

প্রবেশন সময়কাল সাধারণত একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য হয় যার সময় প্রার্থীদের কর্মক্ষমতা তাদের ঊর্ধ্বতনদের দ্বারা মূল্যায়ন করা হয়। তারা তাদের অবস্থানে নিশ্চিত হতে পারে এবং তারা সন্তোষজনকভাবে কাজ করলে প্রতিরক্ষা বাহিনীতে কাজ চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া যেতে পারে। যদি তাদের কর্মক্ষমতা অপর্যাপ্ত বলে বিচার করা হয়, তাহলে তাদের চাকরি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হতে পারে।

12 তম এর পরে ডিফেন্সে বিভিন্ন ক্যারিয়ারের বিকল্প

12 তম গ্রেডের পরে, প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য নির্বাচন প্রক্রিয়া বেশ কঠোর, পরীক্ষা এবং মূল্যায়নের একাধিক ধাপ জড়িত। প্রথম ধাপ হল প্রাসঙ্গিক প্রতিরক্ষা সংস্থা দ্বারা পরিচালিত লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া।

লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর, আপনাকে অবশ্যই শারীরিক ফিটনেস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে, যা আপনার সামগ্রিক শারীরিক স্বাস্থ্য এবং ফিটনেস মূল্যায়ন করে। এর পরে, আপনি আপনার দায়িত্ব পালনের জন্য শারীরিকভাবে উপযুক্ত কিনা তা নিশ্চিত করতে আপনাকে অবশ্যই একটি মেডিকেল পরীক্ষা পাস করতে হবে।

এই প্রাথমিক ধাপগুলি অতিক্রম করার পর, আপনার যোগ্যতা, ব্যক্তিত্বের বৈশিষ্ট্য এবং কাজের জন্য সামগ্রিক উপযুক্ততা মূল্যায়ন করার জন্য আপনাকে একটি ইন্টারভিউ এবং একটি ব্যক্তিত্ব পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।

READ  ভারতে খণ্ডকালীন ডেলিভারি কাজের জন্য কী ধরনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়?

12 তম গ্রেডের পরে, প্রতিরক্ষা সেক্টরে কিছু জনপ্রিয় কেরিয়ারের বিকল্পগুলির মধ্যে রয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী, ভারতীয় নৌবাহিনী, ভারতীয় বিমান বাহিনী, বা ভারতীয় উপকূলরক্ষী বাহিনীতে যোগদান করা। এই সংস্থাগুলি ইঞ্জিনিয়ারিং, প্রশাসন, প্রযুক্তিগত বাণিজ্য এবং যুদ্ধের ভূমিকার মতো বিভিন্ন বিশেষায়িত ক্ষেত্রে বিভিন্ন সুযোগ প্রদান করে।

12 তম এর পরে প্রতিরক্ষা চাকরি নির্বাচন প্রক্রিয়ার জন্য কীভাবে প্রস্তুতি নেবেন?

প্রথম ধাপ হল আপনি যে নির্দিষ্ট প্রতিরক্ষা চাকরি চান তার জন্য আপনি যোগ্যতার প্রয়োজনীয়তা পূরণ করছেন তা নিশ্চিত করা। এর মধ্যে বয়সের সীমাবদ্ধতা, শারীরিক সুস্থতার প্রয়োজনীয়তা, শিক্ষাগত প্রয়োজনীয়তা এবং অন্যান্য কারণ থাকতে পারে। আপনি যোগ্য কিনা নিশ্চিত হয়ে গেলে আপনি নির্বাচন প্রক্রিয়ার জন্য প্রস্তুতি শুরু করতে পারেন।

নিচের ধাপটি হল আপনার শারীরিক সুস্থতার দিকে মনোনিবেশ করা। সামরিক চাকরির জন্য প্রয়োজনীয় শারীরিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার জন্য একটি সুস্থ এবং ফিট শরীর বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ। একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্য খাওয়ার মাধ্যমে শুরু করুন এবং নিয়মিত ব্যায়ামের রুটিনে জড়িত থাকুন যার মধ্যে রয়েছে দৌড়, পুশ-আপ এবং অন্যান্য ব্যায়াম যা সহনশীলতা এবং শক্তি উন্নত করে।

আপনি আপনার শারীরিক সুস্থতা উন্নত করার পরে, আপনার মানসিক প্রস্তুতিতে মনোনিবেশ করা উচিত। লিখিত পরীক্ষা, গ্রুপ আলোচনা, এবং সাক্ষাত্কার সব নির্বাচন প্রক্রিয়ার অংশ. আপনি নিয়মিত অধ্যয়ন করে, আগের বছরের প্রশ্নপত্র অনুশীলন করে এবং অভিজ্ঞ প্রশিক্ষকদের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে আপনার সাফল্যের সম্ভাবনা বাড়াতে পারেন।

আপনার শারীরিক এবং মানসিক প্রস্তুতির পাশাপাশি আপনার যোগাযোগ দক্ষতা অনুশীলন করা উচিত। দলগত আলোচনা এবং সাক্ষাৎকারে কার্যকর যোগাযোগ অপরিহার্য। সংবাদপত্র পড়া, নিউজ চ্যানেল দেখা এবং বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের সদস্যদের সাথে বিতর্ক করা সবই অনুশীলনের ভালো উপায়।

12 তম পরে প্রতিরক্ষা চাকরির জন্য নির্বাচন প্রক্রিয়া চলাকালীন চ্যালেঞ্জগুলি সম্মুখীন হয়।

সবচেয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জগুলির মধ্যে একটি হল উচ্চ স্তরের প্রতিযোগিতা, কারণ অনেক শিক্ষার্থী প্রতি বছর এই চাকরিগুলির জন্য আবেদন করে।

আরেকটি বাধা হল কঠোর শারীরিক এবং মানসিক পরীক্ষা যা প্রার্থীদের অবশ্যই পাস করতে হবে। এই পরীক্ষাগুলি প্রার্থীদের ফিটনেস এবং মানসিক দৃঢ়তা মূল্যায়ন করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে এবং সেগুলি বেশ দাবিদার হতে পারে।

প্রার্থীদের অবশ্যই লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে, যা পাস করা কঠিন হতে পারে কারণ তারা গণিত, বিজ্ঞান এবং সাধারণ জ্ঞান সহ বিস্তৃত বিষয় কভার করে। এই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার জন্য, প্রার্থীদের অবশ্যই এই বিষয়গুলি সম্পর্কে দৃঢ় ধারণা থাকতে হবে।

অবশেষে, প্রার্থীদের অবশ্যই সুশৃঙ্খল এবং প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হতে হবে, কারণ প্রতিরক্ষা কাজের জন্য উচ্চ স্তরের উত্সর্গ এবং কঠোর পরিশ্রম প্রয়োজন। তাদের অবশ্যই এই অবস্থানগুলিতে সফল হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সময় এবং প্রচেষ্টা করতে ইচ্ছুক হতে হবে।

এই বাধাগুলি অতিক্রম করার জন্য প্রার্থীদের শারীরিক ও মানসিকভাবে প্রস্তুত হতে হবে। পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার জন্য, তাদের অবশ্যই পরীক্ষায় অন্তর্ভুক্ত বিষয়গুলিতে একটি শক্তিশালী জ্ঞানের ভিত্তি থাকতে হবে, পাশাপাশি শারীরিকভাবে ফিট এবং মানসিকভাবে শক্ত হতে হবে।

তাদের অবশ্যই কাজের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হতে হবে এবং সফল হওয়ার জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে ইচ্ছুক হতে হবে। প্রার্থীরা এই বাধাগুলি অতিক্রম করতে পারে এবং যথাযথ প্রস্তুতি এবং মানসিকতার সাথে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে তাদের ক্যারিয়ারের জন্য সফল হতে পারে।

Scroll to Top